মেইন ম্যেনু

১১ বছর বয়স হলেই যে স্কুলে যৌন শিক্ষা দেওয়া হয়

ব্রিটিশ সরকার স্কুলগুলোতে একটি নতুন নির্দেশনা পাঠিয়েছে যেখানে বলা হয়েছে এখন থেকে ১১ বছর বয়সীদেরও শিশুদের যৌন সম্মতি সম্পর্কিত শিক্ষা দিতে হবে।যে কোন ধরনের যৌন কর্মকাণ্ডে সম্মতি দেয়ার আগের করণীয় সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা শিশুদের স্কুলে নিতে হবে।

যদিও বিদ্যমান নিয়মানুযায়ী ১৬ বছর উত্তীর্ণ হলেই কেবল কেউ শারীরিক সম্পর্কের আইনগত অধিকার অর্জন করে।

ব্রিটিশ এমপিদের একটি কমিটি যৌন ও প্রেম বিষয়ে শিক্ষা সব শিশুর জন্য বাধ্যতামূলক করা উচিত মন্তব্য করে রিপোর্ট দেয়ার পর এ নির্দেশনাটি আসলো।

ব্রিটিশ সমাজের সবকিছুতেই -টিভি, বিজ্ঞাপন এমনকি স্কুলেও যৌনতার উপস্থিতি দেখা যাচ্ছে, যেটি আগে এতো ভয়াবহ ছিলনা।
ব্রিটেনে হার্ডকোর পর্ণগ্রাফী সরকারিভাবে নিষিদ্ধ হলেও ইন্টারনেটে সহজেই এসব পাওয়া যায়।

সমাজে যৌনতার একটি মাপকাঠি হলো কিশোর বয়সেই গর্ভধারণের হার।

যদিও ব্রিটেনে গর্ভবতী হওয়া মেয়েদের সংখ্যা কমছে এবং ১৯৬৯ সালের পর এখন সবচেয়ে কম তারপরেও সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে যুক্তরাজ্যে টিন এজ বয়সে গর্ভধারণের হার ইউরোপীয় ইউনিয়নে চতুর্থ সর্বোচ্চ স্থানে রয়েছে।
ব্রিটিশ সরকার পরিষ্কারভাবেই বুঝতে পারছে এ বিষয়টিতে অনেক কিছুই করণীয় আছে।

ব্রিটেনের এডুকেশন সেক্রেটারি নিকি মরগেন বলেছেন যৌনতার বিষয়ে শিশুরা প্রচণ্ড চাপে থাকে এবং সম্ভাব্য ঝুঁকির বিষয়গুলো মোকাবেলা করতে তাদেরকে সহযোগিতা করা দরকার।

একটি ব্রিটিশ সংবাদপত্রে তিনি লিখেছেন, “আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যে পরামর্শগুলো মেয়েরা শুধু পড়ালেখার প্রয়োজনেই নয়, বরং তাদের জীবনের প্রস্তুতির ক্ষেত্রেও কাজে দেবে”।

এখন কর্তৃপক্ষ মূলত দুটো বিষয় নিয়ে কাজ করতে চাইছেন।

একটি হলো স্বাভাবিক রোমান্টিক সম্পর্কগুলো যেগুলো শারীরিক সম্পর্কের দিকে যায় যেটা সম্পর্কে তারাই নিজেরা ততটা জানেনা।
অন্য পরিস্থিতিটি অনেকটা হুমকিস্বরুপ।

অনেক ঘটনায় দেখা গেছে অনেকে বুঝতেই পারেনা তারা কিভাবে নির্যাতনের শিকার হচ্ছে।

যে চ্যারিটি নতুন শিক্ষা উপকরণ তৈরিতে সহায়তা করবে তারা বলছে শিশু নির্যাতনের বিষয়ে সাম্প্রতিক এক তদন্তে বেরিয়ে এসেছে শিশুদের নিজেদের ও অন্যকে নিরাপদ রাখতে স্কুলে সে বিষয়ে শিক্ষার দরকার আছে।

যৌন শিক্ষার সমর্থকরা বলছে সরকারের পরামর্শ যথেষ্ট নয় এবং তারা চান সেক্স ও রিলেশনশিপ শিক্ষার্থীদের জন্য বাধ্যতামূলক করা হোক।

যুক্তরাষ্ট্রে এক গবেষণায় দেখা গেছে এ ধরনের শিক্ষার পর শিক্ষার্থীরা শারীরিক সম্পর্কের সময় কনডম বা অন্য কোন সুরক্ষা ব্যবহার করছে। সুত্র-বিবিসি বাংলা






মন্তব্য চালু নেই