মেইন ম্যেনু

১৫৪ ট্যানারি: প্রতিদিন জরিমানা দিতে হবে ৫০ হাজার টাকা

আদালতে নির্দেশের পরেও কারখানা না সরানোয় ১৫৪ ট্যানারি কারাখানাকে প্রতিদিন জরিমানা হিসেবে ৫০ হাজার টাকা করে সরকারি কোষাগারে জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি এ কে এম সাহিদুল হকের বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন।

রিট আবেদনের পক্ষের আইনজীবী মনজিল মোরশেদ জানান, যতদিন পর্যন্ত কারখানা সরাবে না ততদিন পর্যন্ত পরিবেশের ক্ষতি হিসাবে ট্যানারিকে সরকারি কোষাগারে ৫০ হাজার টাকা করে জমা দিতে হবে।

আদালতের এ আদেশ মনিটরিং করে শিল্পসচিব ১৭ ‍জুলাইয়ের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন আকারে জানাবেন। একই সময়ের মধ্যে হাজারীবাগের ট্যানির কারণে বুড়িগঙ্গায় কী পরিমাণ পরিবেশ দূষণ হচ্ছে তা নির্ণয় করে পরিবেশ সচিবকে আদালতকে প্রতিবেদন আকার জানাতে হবে।

আদালতে শিল্পসচিবের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী রইস উদ্দিন।

এক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০০১ সালে ট্যানারি শিল্প হাজারীবাগ থেকে সরিয়ে নিতে নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট।

দীর্ঘদিন ধরে ওই আদেশ বাস্তবায়িত না হওয়ায় অন্য এক আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০১০ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে হাজারীবাগের ট্যানারি শিল্প অন্যত্র সরিয়ে নিতে ২০০৯ সালের ২৩ জুন হাইকোর্ট ফের নির্দেশ দেন।

সরকারপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে পরে ওই সময়সীমা কয়েক দফা বাড়িয়ে ২০১১ সালের ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত করা হয়।

কিন্তু এ সময়ের মধ্যেও স্থানান্তর না হওয়ায় আদালত অবমাননার মামলা করেন পরিবেশবাদী সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের পক্ষ থেকে মনজিল মোরশেদ।

এ মামলার প্রেক্ষিতে ২০১৪ সালের ১৫ এপ্রিল আদালত অবমাননার রুল জারি করেন হাইকোর্ট। পরে গত বছরের ২১ এপ্রিল আদালতের তলবে হাইকোর্টে হাজির হয়ে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দেন শিল্পসচিব।

এরপরও ওই দশ প্রতিষ্ঠান হাজারীবাগ থেকে ট্যানারি স্থানান্তরের পদক্ষেপ না নেওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে ফের আদালত অবমাননার অভিযোগে আরো একটি আবেদন করেন মনজিল মোরশেদ।

এর মধ্যে ১৩ এপ্রিল রাজধানীর হাজারীবাগে এখনো যেসব ট্যানারি ব্যবসা পরিচালনা করছে তাদের তালিকা চেয়েছিল হাইকোর্ট।

তিন সপ্তাহের মধ্যে শিল্পসচিবকে এই তালিকা বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি এ কে এম সাহিদুল হকের হাইকোর্ট বেঞ্চে দাখিল করতে হবে।

আদালতের এ আদেশ অনুসারে শিল্পসচিবের পক্ষে আইনজীবী রইস উদ্দিন ১৫৫টি ট্যানারির তালিকা হস্তান্তর করেন। এর মধ্যে মাত্র একটি ট্যানারি স্থানান্তর করে।

পরে আদালত ১৫৪ ট্যানারি প্রতিষ্ঠানকে প্রতিদিন ৫০ হাজার টাকা করে সরকারি কোষাগারে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেন।






মন্তব্য চালু নেই