মেইন ম্যেনু

১৮ বছর পর বলিভিয়ার জয়

১৯৯৭ সালে কোপা আমেরিকার ফাইনালে উঠেছিল বলিভিয়া। অবশ্য সেবার ঘরের মাঠে শিরোপার লড়াইয়ে ব্রাজিলের কাছে হেরে গিয়েছিল তারা। লাতিন আমেরিকার সব থেকে মর্যাদাপূর্ণ এই টুর্নামেন্টের পরের পাঁচ আসরে প্রথম রাউন্ডের গণ্ডিই পেরোতে পারেনি বলিভিয়া। এমনকি এই পাঁচ টুর্নামেন্টে ১৫টি ম্যাচ খেলে কখনোই জয়ের মুখ দেখেনি দলটি!

অবশেষে ১৮ বছর পর কোপা আমেরিকায় জয়ের স্বাদ পেল বলিভিয়া। এবারের আসরে ‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে সোমবার রাতে ইকুয়েডরকে ৩-২ গোলে হারিয়েছে তারা। অর্থাৎ ১৯৯৭ সালের পর কোপা আমেরিকায় জয়ের মুখ দেখল বলিভিয়া। সেই সঙ্গে ১৯৯৫ সালের পর বিদেশের মাটিতে প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ জিতল তারা।

ইকুয়েডরের বিপক্ষে সবাইকে চমকে দিয়ে ম্যাচের প্রথমার্ধেই ৩-০ গোলে এগিয়ে যায় বলিভিয়া। পঞ্চম মিনিটে রোনাল্ড রালডেস, ১৮ মিনিটে মার্টিন ডালেন্স ও ৪৩ মিনিটে মার্টিনস মোরেনো ইকুয়েডরের জালে বল জড়ান।

প্রথমার্ধে তিন গোল হজমের পর দ্বিতীয়ার্ধে অবশ্য ঘুরে দাঁড়ায় ইকুয়েডর। ৪৮ মিনিটে এনার ভ্যালেন্সিয়া একটি গোল শোধ করার পর ৮১ মিনিটে মিলার বলানস আরেকটি গোল শোধ করেন। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি তাদের। শেষ পর্যন্ত ৩-২ গোলের পরাজয়ের হতাশা নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় ইকুয়েডরের খেলোয়াড়দের। আর ১৯৯৭ সালের পর কোপা আমেরিকায় ম্যাচ জিতে উল্লাসে মাতে বলিভিয়া।

ইকুয়েডরের বিপক্ষে জয় ও আগের ম্যাচ ড্র করে ৪ পয়েন্ট নিয়ে ‘এ’ গ্রুপের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে বলিভিয়া। আর দুই ম্যাচের দুটিতেই হেরে চতুর্থ স্থানে ইকুয়েডর। এ ছাড়া ২ পয়েন্ট নিয়ে মেক্সিকো তৃতীয় এবং ৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে স্বাগতিক চিলি। বলিভিয়ার সমান পয়েন্ট হলেও গোল ব্যবধানে এগিয়ে আছে স্বাগতিকরা। গ্রুপ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হবে চিলি-বলিভিয়া এবং মেক্সিকো-ইকুয়েডর।






মন্তব্য চালু নেই