মেইন ম্যেনু

২২ লক্ষ বার দেখা হয়েছে যে ভিডিও, কিন্তু কেন?

সম্প্রতি আপনার জীবনে এমন কিছু ঘটেছে, যা আপনার আত্মবিশ্বাসকে গলা ধাক্কা দিয়ে নামিয়ে দিয়েছে একেবারে তলানিতে? যেখান থেকে কোনওভাবেই ঘুরে দাঁড়ানোর কোনও পথ খুঁজে পাচ্ছেন না? ক্রমেই ডুবে যাচ্ছেন অতল থেকে আরও অতলে। তাহলে দাঁড়ান। চরম কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে একটা বারের জন্য শুনে নিন ক্রিস্টাল কান্টুর কথা। চোখ বুলিয়ে নিন তাঁর জীবনের দিকে। হলফ করে বলতে পারি, আপনার যা অবস্থা, তাতে অমৃতের মতো কাজ করবে এই টোটকা। প্রতিবেদন এই সময়।

টেক্সাসের বাসিন্দা ২৫ বছরের ক্রিস্টাল কান্টু। সফল IT কেরিয়ার থাকা সত্ত্বেও, বরাবরই এই কন্যা ক্রসফিট স্পোর্টসের অনুরাগী। বলা চলে, জিমন্যাস্টিক ও ওয়েটলিফটিং ছিল তাঁর ধ্যান-জ্ঞান। সবকিছু ঠিকঠাকই চলছিল। কিন্তু বছর দুয়েক আগে অগাস্ট মাসে হঠাত্;ই চরম বিপর্যয় নেমে আসে ক্রিস্টালের জীবনে। সান অন্টানিওতে গাড়িতে চড়ে তিনি বেড়াতে বেরিয়েছিলেন। গাড়ির চালকের আসনে ছিলেন তাঁর বয়ফ্রেন্ড ড্যানিয়েল কুয়েট।

z2

হঠাৎই গাড়ির একটি টায়ার ফেটে মারাত্মক দুর্ঘটনার মুখে পড়ে তাঁদের গাড়ি। ড্যানিয়েল রক্ষা পেলেও, গুরুতর চোট লাগে ক্রিস্টালের। কঠিন অপারেশনের পর তাঁর জ্ঞান ফেরে। ডাক্তার ক্রিস্টালকে জানান, কোনও উপায় ছিল না। তাঁর ডান হাতের বেশিরভাগটাই কেটে বাদ দিয়ে দিতে হয়েছে। কথাগুলো শুনে পায়ের তলা থেকে মাটি সরে গিয়েছিল ক্রিস্টালের। শরীরের আঘাতের থেকেও অনেক বেশি অনুভূত হল মানসিক যন্ত্রণা।

তবে, নিয়তির কাছে হার মানার পাত্রী নন ক্রিস্টাল। হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফেরার পর তিন সপ্তাহ কাটেনি। আবার তিনি আঁকড়ে ধরেন তাঁর ভালোবাসার ক্রসফিটকে। একটা হাতে একজন মানুষের সেই অক্লান্ত, অবিশ্বাস্য ওয়ার্ক-আউট দেখলে নিঃসন্দেহে স্তম্ভিত হতে হয়।

z1

প্রতিবন্ধকতা তাঁর এগিয়ে চলার পথে বাধ সাধা তো দুরস্ত্, বরং তাঁকে আরও বেশি চাঙ্গা ও উদ্বুদ্ধ করে তুলেছে। কারণ সবসময়ই প্রতিবন্ধকতাকে কাটিয়ে ওঠার নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে গিয়েছেন ক্রিস্টাল। ফলও পেয়েছেন হাতেনাতে। দু হাতে তিনি যে ওজন তুলতেন, এখন তাঁর থেকে অনেক বেশি ওজন অনায়াসে মাথার উপরে তুলে ধরেন এক হাতেই। ক্রিস্টালের অনমনীয় মানসিকতা উদ্বুদ্ধ করেছে তাঁর প্রশিক্ষককেও।

একজন মানুষের ভিতরে কতটা জীবনীশক্তি লুকিয়ে থাকে, ক্রিস্টালকে না দেখলে তা বোঝার উপায় নেই। শুধু বেঁচে থাকাই নয়, বাঁচার মতো বেঁচে থাকার তাগিদকে নিঃসন্দেহে উসকে দিয়েছেন ক্রিস্টাল কান্টু। ‘এভাবেও ফিরে আসা যায়’? স্যালুট ক্রিস্টাল।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই