মেইন ম্যেনু

এবার ৪ দিন সময় বাড়ল

২৫ সেপ্টেম্বর থেকে ইলিশ আহরণ নিষিদ্ধ

ইলিশ রক্ষায় প্রজনন মৌসুমে এবার আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে ৯ অক্টোবর পর্যন্ত ১৫ দিন ইলিশ ধরা ও বিক্রি নিষিদ্ধ করেছে সরকার।

অন্যান্য বছর এ সময় ১১ দিন হলেও এবার ১৯৮৫ সালের মাছ রক্ষা ও সংরক্ষণ বিধি (প্রটেকশন এ্যান্ড কনজারভেশন ফিস রুলস, ১৯৮৫) সংশোধন করে এ সময় ৪ দিন বাড়ানো হয়েছে।

সচিবালয়ে বৃহস্পতিবার এ সংক্রান্ত এক সভায় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হক বলেন, ‘ইলিশ সংরক্ষণে এ বছর আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে ৯ অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশ মাছ ধরা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এ সময় আগে ১১ দিন ছিল। এবার সময় চার দিন বৃদ্ধি করা হয়েছে।’

আগের নিয়ম অনুযায়ী, চন্দ্রমাসের ভিত্তিতে প্রধান প্রজনন মৌসুম ধরে প্রতিবছর আশ্বিনী প্রথম চাঁদের পূর্ণিমার দিন এবং এর আগে ও পরের পাঁচদিন করে মোট ১১ দিন ইলিশ ধরা বন্ধ থাকত।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব আনিছুর রহমান বলেন, ‘অন্যান্য বছর নিষিদ্ধের সময় ১১ দিন পর মা ইলিশ মাছ সমুদ্রে ফিরে যাওয়ার সময় ধরা পড়ত। এজন্য এ সময় চারদিন বাড়ানো হয়েছে। এ বছর আশ্বিনী পূর্ণিমার দিন ও এর আগে তিন দিন ছাড়াও পূর্ণিমার পর ১১ দিন ইলিশ মাছ ধরা ও বিক্রি নিষিদ্ধ থাকবে।’

সরকার নির্ধারিত ওই সময়ে ইলিশ ধরা ও বিক্রির পাশাপাশি সরবরাহ ও মজুদও নিষিদ্ধ থাকে। এ আদেশ অমান্য করলে তা দণ্ডনীয় অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করে অভিযুক্তদের এক মাস থেকে সর্বোচ্চ ছয় মাস পর্যন্ত কারাদণ্ড এবং এক হাজার টাকা জরিমানা দিতে হয়। তবে এর পরে প্রত্যেকবার অপরাধের জন্য দ্বিগুণ হারে শাস্তি ভোগ করতে হয়।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী সভায় বলেন, ‘দেশে আমিষের চাহিদা ৬০ শতাংশ আসে মাছ থেকে। আমাদের মাছের মোট চাহিদা ৪২ লাখ মেট্রিক টন। ২০১৩-২০১৪ অর্থবছরে দেশে মাছের মোট উৎপাদন ৩৫ লাখ ৬৮ হাজার টন। প্রতিবছর এক লাখ টন মাছের উৎপাদন বৃদ্ধির পরিকল্পনা রয়েছে। গত অর্থবছরে উৎপাদনের হিসাব চলছে, আশা করি তা এক লাখ টন বেশি হবে।’






মন্তব্য চালু নেই