মেইন ম্যেনু

৩০ অক্টোবর থেকে পেট্রোল পাম্পে ধর্মঘট

১২ দফা দাবিতে আগামী ৩০ অক্টোবর সকাল ৬টা থেকে সারাদেশে পেট্রোল পাম্পে লাগাতার ধর্মঘটের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর একটি অভিজাত হোটেলে পেট্রোল পাম্প ও ট্যাংক-লরি মালিক-শ্রমিকরা সংবাদ সম্মেলন করে ধর্মঘটের ঘোষণা দেয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ পেট্রোল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোহাম্মদ নাজমুল হক। তিনি বলেন, পেট্রোল পাম্প মালিক ও ট্যাংকলরী মালিক-শ্রমিকরা তাদের দাবি নিয়ে দীর্ঘদিন আন্দোলন করে আসছে। কিন্তু আজও সরকার তাদের দাবি বাস্তবায়নে প্রদক্ষেপ নেয়নি।

তিনি আরো বলেন, ধর্মঘট পালনের সময় দেশের সকল ট্যাংকলরী ও প্রেট্রোল পাম্প বন্ধ থাকবে। বিমানের জ্বালানি তেলও সরবরাহ করা হবে না। তেলের উত্তোলন, পরিবহন ও বিপণন বন্ধ থাকবে।

তাদের ১২ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে, সওজ অধিদপ্তরের ইজারা মাশুক অস্বাভাবিক বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিল করতে হবে; শ্রম মন্ত্রণালয়ের এসআরও নং ১৪১, তারিখ: ১০/০৬/২০০৮ বাতিল পূর্বক ট্যাংকলরীকে প্রকৃত প্রতিষ্ঠান হিসেবে নতুন আসআরও জারি করতে হবে; বাস্তবতার নিরিখে তেল বিক্রির কমিশন ও ট্যাংকলরী ভাড়া বৃদ্ধি করতে হবে; প্রিমিয়াম পরিশোধ সাপেক্ষে ট্যাংকলরী শ্রমিকদের ৫ লাখ টাকা দূর্ঘটনা বিমা প্রণয়ন করতে হবে; অপারেশন লস, ইভাপোরেশন লস এবং বিএসটিআই টলারেন্স মাত্রা যৌক্তিক হারে নির্ধারণের জন্য সংশ্লিষ্ট সব বিভাগ কর্তৃক পরীক্ষান্তে পুনঃনির্ধারণ করতে হবে।

এ ছাড়া ফেরিঘাটে ট্যাংকলরী পারাপারে অগ্রাধিকার দিতে হবে; ভেজালরোধে প্রত্যেক ডিপোতে রোনটেস্ট ব্যবস্থা গ্রহণসহ বেসরকারি রিফাইনারি কর্তৃক বাজারে তেল বিক্রি বন্ধ করতে হবে; সরকারের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী বিদ্যমান টার্মিনাল সংস্কার এবং প্রয়োজনীয় স্থানে নতুন টার্মিনাল নির্মাণ করতে হবে; পেট্রোলপাম্প স্থাপনে নীতিমালা পুনবিন্যাস করতে হবে; ট্যাংকলরী চলাচলে পুলিশি হয়রানি বন্ধ করতে হবে; পেট্রোলপাম্প পরিদর্শনকালীন বিপিসি এবং অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধির উপস্থিতি নিশ্চিত করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পেট্রোল পাম্প ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব মিজানুর রহমান রতন, ট্যাংকলরী শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি মো. শাহজাহান, সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেনসহ কেন্দ্রীয় নেতারা।






মন্তব্য চালু নেই