মেইন ম্যেনু

৩৮ বছর পর জানলেন সহকর্মীই তার মা!

চার বছর একসঙ্গেই এক কোম্পানিতে চাকরি করতেন। কিন্তু সেই সহকর্মীই যে তাঁর জন্মদাত্রী মা তা জনতেন না ওহিও-র ৩৮ বছরের লা সোনিয়া মিচেল ক্লার্ক। বড় হয়ে যখন জানতে পারলেন যে তাঁকে দত্তক নেওয়া হয়েছিল, তখন থেকেই জন্মদাত্রী মায়ের খোঁজ শুরু করেন তিনি।

ওয়াশিংটন পোস্টে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী, মিচেল সরকারি স্বাস্থ্য দফতরের নথিপত্র থেকে জানতে পারেন যে, তাঁর মায়ের নাম ফ্রান্সিস সিমোন। এই কাজটাও সহজ হয়নি।

১৯৬৪ থেকে ১৯৯৬ থেকে জন্ম সংক্রান্ত নথিপত্র ঘেঁটে মায়ের নাম জানতে পারেন তিনি। সেই সূত্রেই তিনি নিজের জন্মদাত্রীকে খুঁজে পেলেন। মা-মেয়ে একসঙ্গে একই কোম্পানিতে সহকর্মী হিসেবে চার বছর কাজ করেছেন।

সহকর্মীই তাঁর মা জানতে পেরে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছিলেন মিচেল। জন্মদাত্রীর সঙ্গে মিচেলের মিলনকে সম্পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছেন তাঁর পালক পিতা-মাতা।






মন্তব্য চালু নেই