মেইন ম্যেনু

৪৫ বছরের অর্জন তুলে ধরলেন প্রধানমন্ত্রী

বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশের বিগত ৪৫ বছরের অর্জন বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিমের সামনে তুলে ধরেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আন্তর্জাতিক দারিদ্র্য নিরসন দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সোমবার ওসমানী মিলনায়তনে কিমের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বাংলাদেশের অর্জনগুলো তুলে ধরেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব ব্যাংককে ধন্যবাদ দিয়ে বলেন, বিশ্ব ব্যাংকের মত সংস্থার কাছ থেকে দারিদ্র্য বিমোচনে বাংলাদেশের অর্জনের প্রশংসা আমাদের অনুপ্রাণিত করবে। বিশ্ব ব্যাংকের এ স্বীকৃতি আমাদের লক্ষ্য অর্জনের চেষ্টাকে আরও ‘বেগবান করবে’।

এরপর পরই শেখ হাসিনা বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্টকে উদ্দেশ্য করে বিগত ৪৫ বছরে বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অর্জনগুলো তুলে ধরেন। তিনি স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, আশা করছি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় দেওয়া প্রতিশ্রুতি আর টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্য পূরণের অঙ্গীকার ভুলে যাবে না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে। বাংলাদেশ ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে। এই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশের কাতারে নিয়ে যাওয়া হবে বলেও জানান শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠানে বিশ্ব ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ ও সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট পল রোমার বলেন, বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা প্রশংসনীয়। বিশেষ করে দারিদ্র্য নির্মূলে বাংলাদেশ অভাবনীয় সাফল্য দেখিয়েছে। তিনি বলেন, অর্থনীতিতে সরকারের নিয়ন্ত্রণ ‘খুব বেশি জরুরি না হলেও’ বাংলাদেশের মত দেশের পরিস্থিতি কিছুটা প্রয়োজন।

অনুষ্ঠানের মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করে রোমার বলেন, বাংলাদেশকে শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ আরো বাড়াতে হবে। তবে তা অবশ্যই মান বজায় রেখে করতে হবে। সুষম সমাজ ব্যবস্থা দিয়েই অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনের কোনো বিকল্প নেই।

বিশ্ব ব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট অ্যানেট ডিক্সন বাংলাদেশে শিক্ষা, নারীর ক্ষমতায়ন ও দারিদ্র্য বিমোচনে নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ ও লক্ষ্য বাস্তবায়নে সাফল্যের কথা অনুষ্ঠানে তুলে ধরেন।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের সামাজিক উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে বিশ্ব ব্যাংকের পক্ষ থেকে একটি প্রামাণ্যচিত্রও দেখানো হয়।






মন্তব্য চালু নেই