মেইন ম্যেনু

৮০ টাকার ভাত-মাছে ফুটপাতে ঈদ : অবশেষে চাকরি পেল সেই দম্পতি

৮০ টাকার ভাত-মাছে এবারের ঈদ কেটেছে তরুণ দম্পতি রাজ্জাক-জেসমিনের। পথে দুজনের খাওয়ার দৃশ্য আর দুঃসহ জীবনের চিত্র উঠে আসে এক প্রতিবেদনে। সংবাদ প্রকাশের পর পাঠকের সাড়াও মেলে বেশ। এর পর এই দম্পতির পাশে দাঁড়াতে আগ্রহ প্রকাশ করেন অনেকেই। প্রতিবেদনে রাজ্জাক-জেসমিন দম্পতির চাকুরির প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি উঠে আসলে সমাজের বিত্তবান বেশ কয়েকজন তাদেরকে সহায়তার আগ্রহ প্রকাশ করেন। এদের মধ্যে চট্টগ্রামের সন্তান, সাবেক রাষ্ট্রদূত গোলাম আকবর খন্দকার এই প্রতিবেদককে ওই দম্পতির চাকুরিসহ আনুষঙ্গিক সহায়তার কথা জানান আন্তরিকভাবে। খবর বাংলামেইলের।

বুধবার (১৩ জুলাই) রাজ্জাক দম্পতিকে নিয়ে পত্রিকার একটি টিম তার ঢাকায় বনানীর অফিসে গেলে তিনি শুরুতে এমন প্রতিবেদন প্রকাশের জন্য ধন্যবাদ জানান। পরে রিজেন্ট গ্রুপের এই কর্ণধার প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের রাজ্জাক-জেসমিনের চাকুরির জন্য ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন।

নির্দেশ মোতাবেক প্রতিষ্ঠানের ক্রয় কর্মকর্তা আবু তৈয়ব যাচাই-বাছাই শেষে রাজ্জাককে তাদের একটি প্রজেক্টের নিরাপত্তাকর্মী হিসেবে ৮ হাজার টাকা বেতনে নিয়োগ দেন। তবে জেসমিন অন্তঃসত্ত্বা হওয়ায় তাকে আপাতত নিয়োগ দেয়া হয়নি। পরে তাকেও নিয়োগ দেয়া হবে বলে আশ্বাস দেন তিনি। তাদের দুজনের থাকা-খাওয়ার দায়িত্বও নিয়েছে রিজেন্ট গ্রুপ।

567

প্রতিষ্ঠানের ডেপুটি ম্যানেজিং ডিরেক্টর ব্যারিস্টার তারেক আকবর খন্দকার নিয়োগের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

চাকুরি পাওয়ার পর খুশিতে আত্মহারা রাজ্জাক। তিনি বলেন, ‘শুরু থেইকা আপনারা (পত্রিকা) যেইভাবে আমাগো সাথে ছিলেন, এমনটা নিজেগো মানুষও করে না। এই চাকরি পাইয়া আমাগো ভাগ্য ঘুইরা যাইবো। আপনাগো এই সাহায্যর লাইগা কী করমু ভাইবা পাইতাছি না।’

গত ৮ জুলাই পবিত্র ঈদুল ফিতরের দিন ‘ফুটপাতের এক কোণে ৮০ টাকার মাছ-ভাতে ঈদ কাটলো এই দম্পতির’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। পরবর্তীতে ১৩ জুলাই ‘রাইতে এক প্লেট ভাতও হইবো না’ শিরোনোমে আরেরেকটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।






মন্তব্য চালু নেই