মেইন ম্যেনু

৮ নাকি ১০ উইকেটে হেরেছে বিসিবি একাদশ?

বিসিবি একাদশের বিপক্ষে শুক্রবার একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচ খেলে দক্ষিণ আফ্রিকা। এই ম্যাচে বিসিবি একাদশ প্রথমে ব্যাট করে ১৮ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ৯৯ রান সংগ্রহ করে। জবাবে ২ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় প্রোটিয়ারা। কিন্তু মাঠে যারা উপস্থিত ছিলেন তারা তো কাউকে আউট হতে দেখেননি!

বিসিবি একাদশের কোনো বোলারের নামের পাশেও উইকেট লেখা হয়নি! তাহলে দক্ষিণ আফ্রিকার দুটি উইকেট পড়ল কিভাবে? এটা নিয়ে বেশ বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে। বেশ কিছু অনলাইন নিউজ পোর্টাল লিখেছে, ১০ উইকেটে হেরেছে বিসিবি একাদশ। আবার কেউ কেউ লিখেছে ৮ উইকেটে হেরেছে। কোনটি সত্য? বিষয়টি নিয়ে পাঠকরা বেশ বিভ্রান্তিতে রয়েছেন। সেটা পরিস্কার করতেই এই লেখা।

১০০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে ৪২ বলে ৬৪ রান তোলেন এবি ডি ভিলিয়ার্স ও কুইটন ডি কক। ভিলিয়ার্স ১৯ বলে করেন ২৫ রান। আর ডি কক ২৪ বলে করেন ৩৫ রান। বিসিবি একাদশ অল্প রান করেছে। এই রান হয়তো উদ্বোধনী জুটিতেই তুলে নিতে পারত দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু প্রস্তুতি ম্যাচে বাকি ব্যাটসম্যানদের ব্যাট করার সুযোগ করে দিতে দলীয় ৬৪ রানের মাথায় মাঠ থেকে উঠে যান ডি ভিলিয়ার্স ও ডি কক। আর স্বেচ্ছায় এমন উঠে যাওয়ার বিষয়টি আউট হিসেবেই গণ্য হয় বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রণ সংস্থা আইসিসির আইন অনুযায়ী।

ক্রিকেট আইনের ২.৯ (বি) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী কোনো ব্যাটসম্যান আঘাতজনিত বা অন্য কোনো যুক্তিসঙ্গত কারণ ছাড়া যদি তার ব্যাটিং-এ অব্যাহতি চান তবে তাকে রিটায়ার্ড আউট ঘোষণা করা হয়। সাধারণত ক্রিকেটে এই আউট খুব একটা দেখা যায় না। টেস্টে মাঝে মাঝে দেখা যায়। টি-টোয়েন্টিতে দেখার সুযোগ নেই বললেই চলে। কিন্তু শুক্রবার ফতুল্লায় টি-টোয়েন্টিতেও রিটায়ার্ড আউট হওয়ার নজরি স্থাপিত হয়েছে! হয়তো প্রস্তুতি ম্যাচ বলেই।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই