মেইন ম্যেনু

৮ বলে ১ রান, খরচ ৮০ হাজার টাকা

রংপুর রাইডার্সের বিপক্ষে পাকিস্তানের উমর আকমলকে মাঠে নামাতে মরিয়া ছিল হারের বৃত্তে থাকা চিটাগং ভাইকিংস। সোমবার রাতে শারজাতে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টি২০ খেলে মঙ্গলবার সকালে ঢাকায় পা রাখেন উমর। সেখান থেকে তাকে হেলিকপ্টারে করে চট্টগ্রামে সরাসরি মাঠে উড়িয়ে আনে চিটাগং ভাইকিংস।

কিন্তু যে কারণে দ্রুত তাকে উড়িয়ে নেয়া আসা হলো, আপাতত সে আশা পূরণ হয়নি চিটাগংয়ের। সাকিব আল হাসানের দারুণ এক ডেলিভারিতে ফিরেছেন মাত্র ১ রানে, সেটিও আবার আটটি বল খরচ করে। তবে হেলিকপ্টারে করে উড়িয়ে আনতে ভাইকিংসের খরচা-পাতিও বেশখানিকটা হয়েছে। শোনা যাচ্ছে খরচের অঙ্কটা ৮০ হাজার টাকার মতো। আর এই ৮০ হাজার টাকা খরচায় ৮ বলে ১ রান। বলা বাহুল্য, রানটা বেশ ব্যয়বহুল হয়েছে বৈকি!

উমরকে খেলিয়ে ভাইকিংস একাদশের বাইরে রেখেছিল জীবন মেন্ডিস, এল্টন চিগুম্বুরা, চামারা কাপুগেদারাদের। তাই ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্ন উঠল আকমলকে খেলানোর যৌক্তিকতা নিয়ে। চিটাগংয়ের কোচ মারভান আতাপাত্তু জানিয়েছেন, বাস্তবতা বুঝেই ঝুঁকিটা নিয়েছিলেন তারা।

বিশেষ ব্যবস্থায় টসের ৪৫ মিনিট আগে উমর আকমলকে উড়িয়ে চট্টগ্রামে এনেছিল চিটাগং ভাইকিংস। আসলেই কতটা জরুরি ছিল উমর আকমলকে খেলানো। তার সাম্প্রতিক ফর্মও ছিল না পক্ষে। কিন্তু দলের কোচ মারভান আতাপাত্তু ক্রিকেটীয় ব্যাখ্যার ধারেকাছেও গেলেন না। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘ম্যাচের আগে আপনি এই প্রশ্ন করলে আমি অবশ্যই বাহবা দিতাম। কেউ রান না পেলে ম্যাচ শেষে আঙুল তোলাই যায়।’

চিটাগং ভাইকিংসের কোচ আতাপাত্তু মনে করছেন, ভ্রমণক্লান্তির কারণেই উমর আকমল স্বাচ্ছন্দ্যে খেলতে পারেননি। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা জানি সব ম্যাচই আমাদের জন্য সমান গুরুত্বপূর্ণ। চার ঘণ্টার ফ্লাইট ও ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারে উড়ে আসার পর তার জন্য আসলে সহজ ছিল না। তারপরও আমরা আশা করছিলাম, সে ভালো করতেও পারে। আশা করি সে দ্রুতই ছন্দে ফিরে আসবে। আসলে দিনটা তার ছিল না।’

ম্যাচে রংপুর রাইডার্স ৯ উইকেটে পরাজিত করে চিটাগং ভাইকিংসকে। ছয় ম্যাচে চিটাগংয়ের এটি পঞ্চম হার।



(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই