মেইন ম্যেনু

৯০ বছরেও অবসর নেননি তিনি

দিন গড়িয়ে বছর পেরুলেই যে বয়স বাড়েনা তার প্রমাণ দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের সান ফ্রান্সিসকোর ৯০ বছর বয়সী এলিনা গ্রিফিংস। ৭০ বছর ধরে একই হাসপাতালে কাজ করছেন তবু অবসরের কথা চিন্তাও করেননি।

জীবনের ৯০ বছর পার করলেও তিনি বয়সের ভারে নুয়ে পড়েননি। এখনো পর্যন্ত পূর্ণ উদ্যমে কাজ করে চলেছেন। এখনো তার মুখে গালভরা হাসি লেগে থাকে। চেহারায় নেই ন্যুনতম ক্লান্তির ছাপ।

গ্রিফিংস জানান, যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকোর সাট্টার হেলথ আলটা বেটস সামিট মেডিক্যাল সেন্টারে কাজ করছেন ৭০ বছর ধরে। শিগগিরই তার অবসর গ্রহণের কোনো পরিকল্পনা নেই।

সাট্টার হেলথ আলটা বেটস সামিট মেডিক্যাল সেন্টারের মুখপাত্র ক্যারোলিন কেম্প জানান, সম্প্রতি গ্রিফিংসের ৯০তম জন্মবার্ষিকী পালন করা হয়েছে। এটার তার জন্য মাইলফলক। এই দীর্ঘ কর্ম জীবনে গ্রিফিংস বিভিন্ন পদে চাকরি করেছেন একই কর্মস্থলে। তিনি প্রতিদিন তার কাজ উপভোগ করেন।

গ্রিফিংস জানান, তিনি হাসপাতালের কাজে আসতে দেরি করতে পারেন না। প্রতিদিনের কাজের সবকিছুই উপভোগ করেন।এটা সত্য যে তিনি রোগীদের কথা বিবেচনা করেন। যদি কাউকে সাহায্য করতে পারেন তাহলে খুবই ভালো লাগে তার। তিনি কাজে অবহেলা করেন না।

গ্রিফিংস তার ৭০ বছরের কর্মজীবনে মাত্র চারদিন অসুস্থতার ছুটি নিয়েছেন। প্রায় ১৫ আগে তার অ্যাপেন্ডিক্স অপারেশনের সময় ছুটি নিয়েছিলেন।

তিনি ১৯৪৬ সালের ১ এপ্রিল কাজে যোগ দিয়েছিলেন। তখন তার বয়স ছিল ২০ বছর। তখন হাসপাতালটির নাম ছিল আলটা বেটস কমিউনিটি হসপিটাল। গ্রিফিংস প্রথমে ল্যাবরেটরিতে প্যাথলজিস্ট হিসেবে কাজ শুরু করেন, যেখানে তিনি ব্যাং ও খরগোশকে ইনজেকশন দিতেন এবং তাদের মুত্র অপসারণ করতেন। দ্রুতই তিনি এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হয়ে ওঠেন। এরপর তিনি ১০ ধরে এন্ডোক্রিনোলজিস্ট হিসেবে কাজ করেছেন। এরপর তিনি ২২ বছর ধরে আলটা বেটস বার্ন সেন্টারে কাজ করেছেন। বর্তমানে ‘পেশেন্ট রিলেশন’-এ কাজ করছেন।

গ্রিফিংস বলেন, আমি ২০ বছর বয়সে যেভাবে কাজ করেছি এখনো সেভাবেই কাজ করছি। এর মধ্যে কোনো তফাত দেখতে পাইনা। আমি সত্যিই ভাগ্যবান।

গ্রিফিংস ততদিন কাজ করে যেতে চান যতদিন কর্তৃপক্ষ তাকে এই সুযোগ দেবে।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই