মেইন ম্যেনু

৯ ক্যাচ মিসের মাশুল ৩৬০ রান!

‘ক্যাচ মিস তো ম্যাচ মিস’-কথাটা ক্রিকেট বিশ্বে বেশ ভালোই পরিচিত। একটা ক্যাচ ফেলে দেওয়ার জন্য সত্যিই ম্যাচ হারতে হয়েছে, এমন উদাহরণও ক্রিকেট ইতিহাসে অনেক আছে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে কেপ টাউন টেস্টে ইংল্যান্ড হয়তো হারবে না, চতুর্থ দিনের খেলা শেষে যা অবস্থা তাতে নাটকীয় কিছু না হলে ম্যাচটা ড্রই হবে। তবে ফলটা অন্যরকমও হতে পারত। কিন্তু ইংল্যান্ডের ফিল্ডাররা যে এক ইনিংসেই ৯টি ক্যাচ মিস করেছেন। আর এই ৯ ক্যাচ মিসের মাশুল হিসেবে তাদের গুনতে হয়েছে ৩৬০ রান!

সিরিজের দ্বিতীয় এই টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকাকে একরকম রানের পাহাড়েই চাপা দিয়েছিল ইংল্যান্ড। বেন স্টোকসের রেকর্ড ডাবল সেঞ্চুরি (২৫৮) ও জনি বেয়ারস্টোর দেড়শতাধিক (১৫০*) রানের সুবাদে ৬ উইকেটে ৬২৯ রানে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেছিলেন ইংলিশ অধিনায়ক অ্যালিস্টার কুক। জবাবে ৩০০ রানের আগেই দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস গুটিয়ে যেতে পারত। কিন্তু ইংলিশ ফিল্ডারদের ব্যর্থতায় শেষ পর্যন্ত ৭ উইকেটে ৬২৭ রানে ইনিংস ঘোষণা করে প্রোটিয়ারা। অর্থাৎ ইংল্যান্ডের চেয়ে মাত্র ২ রান কম।

দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে ডাবল সেঞ্চুরি করা এক হাশিম আমলারই চার-চারটি ক্যাচ ফেলে দিয়েছেন ইংল্যান্ডের ফিল্ডাররা। ব্যক্তিগত ২১ রানেই সাজঘরে ফিরে যেতে পারতেন আমলা। কিন্তু আমলার ক্যাচ ছাড়েন জেসম টেলর। এরপর আমলার ৭৬ রানে ক্যাচ ছাড়েন জেমস অ্যান্ডারসন, ১২০ রানে নিক কম্পটন আর ২০১ রানে আবার টেলর। চতুর্থবার জীবন পেয়ে অবশ্য আর কোনো রান যোগ করতে পারেননি আমলা। তবে ২১ রানে টেলর ক্যাচটা না ছাড়লে তো ২০১ রানই করতে পারতেন না আমলা। অর্থাৎ আমলা প্রথম জীবন পাওয়ার পর ১৮০ রান করেছেন!

এবি ডি ভিলিয়ার্স আউট হতে পারতেন ৫ রান করেই। কিন্তু তার ক্যাচ ছাড়েন জো রুট। পরে সেই ডি ভিলিয়ার্স খেলেন ৮৮ রানের ইনিংস। অর্থাৎ ডি ভিলিয়ার্স জীবন পাওয়ার পর করেছেন ৮৩ রান! ৬৯ রান করা ক্রিস মরিসও ২২ রানেই সাজঘরে ফিরে যেতেন। কিন্তু তার ক্যাচ ছাড়েন ফিন। ৫৭ রানে আরেকবার জীবন পান মরিস, এবার ফিল্ডার বেয়ারস্টো। তেম্বা বাভুমা ৭৭ রানে বেয়ারস্টোর হাতে জীবন পেয়ে করেন অপরাজিত ১০২ রান। এ ছাড়া ফাফ ডু প্লেসিস ৬১ রানে জীবন পেয়ে শেষ পর্যন্ত খেলেন ৮৬ রানের ইনিংস। তার ক্যাচ ছাড়েন অ্যান্ডারসন।

সব মিলিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার পাঁচ ব্যাটসম্যানের মোট ৯টি ক্যাচ ছেড়েছেন ইংল্যান্ডের ফিল্ডাররা। আর পাঁচ প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান জীবন পাওয়ার পর স্কোরবোর্ডে ৩৬০ রান যোগ করেছেন। এই ৩৬০ রান ইংলিশ ফিল্ডারদের ক্যাচ মিসের মাশুলই তো নাকি?

তথ্যসূত্র : ক্রিকেট ট্রেকার, ক্রিকইনফো



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই