মেইন ম্যেনু

‌‘বার করছি তোর ফেসিয়াল করা, মুখটাই পুড়িয়ে দেব’

নিজের রূপচর্চার টাকা না দেয়ায় স্ত্রীর মুখে অ্যাসিড ছুড়ে মারে নেশাখোর স্বামী। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের উত্তর ২৪ পরগনায়।

অ্যাসিড হামলার শিকার ওই নারীর নাম পিঙ্কি রায় (২৬)। জেলার গাইঘাটার ঢাকুরিয়ায় উজ্জ্বল রায়ের সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছিল।

দুই কন্যার মা পিঙ্কি জানান, তার স্বামী ট্রাক শ্রমিক। তেমন রোজগার ছিল না, তার ওপর নেশা করত। যতটুকু টাকা আসত উড়িয়ে দিত নেশায়। প্রতিবাদ করলে জুটতো মারধর। ভারতীয় গণমাধ্যমে এমনটাই জানা গেছে।

স্বামীর অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে আড়াই বছর আগে ফুলসরা খড়ের মাঠ এলাকায় বাপের বাড়িতে চলে আসেন পিঙ্কি।

এখন কলকাতায় পরিচারিকার কাজ করে বড় মেয়ে তৃতীয় শ্রেণিতে এংব ছোট মেয়েকে প্রথম শ্রেণিতে পড়াচ্ছেন।

সাতদিন আগে পিঙ্কির বাপের বাড়ি উপস্থিত হন স্বামী উজ্জ্বল রায়। তিনি স্ত্রীর কাছে ৫ হাজার টাকা চান। স্ত্রী জানান, অত টাকা নেই। তখন উজ্জ্বল যত টাকা আছে, তাই দিতে বলেন।

জবাবে স্ত্রী বলেন, যা আছে তা দিয়ে তিনি ফেসিয়াল করাবেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে উজ্জ্বলের সোজা জবাব, ‘বার করছি তোর ফেসিয়াল করা। মুখটাই পুড়িয়ে দেব অ্যাসিড দিয়ে!

এরপর মঙ্গলবার সকালে গাইঘাটার পাল্লা সড়কে ফুলসরা মোড়ের কাছে ভ্যানে বসা পিঙ্কিকে অ্যাসিড ছুড়ে মারে উজ্জ্বল।

পিঙ্কি জানান, সাইকেল নিয়ে এসে মুখে অ্যাসিড ছুড়ে মেরে পালিয়ে যায় উজ্জ্বল। পিঙ্কি চাঁদপাড়া ব্লক প্রাথমিক হাসপাতালে ভর্তি। কপাল ও মুখের এক পাশ পুড়ে গেছে। পুলিশের অনুমান, গাড়ির ব্যাটারিতে থাকা অ্যাসিড ছুড়েছিল উজ্জ্বল।

পিঙ্কি বলেন, আসলে আমি ভালো আছি, নিজে রোজগার করে মেয়েদের লেখাপড়া শেখাচ্ছি, সেটা ও সহ্য করতে পারছে না। সে জন্যই আক্রমণ।

তিনি বলেন, নিজেই ওকে শাস্তি দেব। যেভাবে আমাকে যন্ত্রণা দিল, তার শোধ নেব।

এদিকে ২৪ পরগনার পুলিশ সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায় বলেন, অ্যাসিড ছুড়ে মারার ঘটনায় মামলা দায়ের হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই